Life Style

ব্রেকআপ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

ব্রেকআপ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়?

ব্রেকআপ হলো এমন একটি জিনিস বা কাজ যা কারো জন্য করা হয়তো খুবই সহজ হতে পারে আর কারো জন্য এই ব্রেকআপ একটি হার্ট ব্রেকিং ইনসিডেন্ট হতে পারে যা ব্যক্তিকে একেবারেই ভেঙে ফেলে. কেউ এই ব্রেকআপ কে তাড়াতাড়ি ওভা করতে পারে. আবার কারো কাছে এই heart breaking incident কে overcome করতে সারাজীবন লেগে যায়. দেখুন ব্রেকআপ নামের এই situation টি কিন্তু একটাই, তফাৎ শুধু এটাই যে লোকেরা আলাদা আলাদা হয়ে থাকে।

experience ও এক এক জনের কাছে এক এক রকম হয়ে থাকে. আজকের  আর্টিকেল টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ রয়েছে আপনার জন্য. যদি আপনার লাইফ এ কোন না কোন সময় ব্রেকআপ হয়ে থাকে তবে যদি আপনার লাইফে কোনদিন এই ব্রেকআপ ঘটে তাহলে আজকের এই ভিডিও টি আপনার জন্য useful হতে চলেছে. আপনি একজন ছেলে হন বা মেয়ে হন তাতে কোন যায় আসে না. কারণ ভিডিও টি mail এবং female দুই জনের জন্যই dedicated. আজ আমরা এই ভিডিও টির মাধ্যমে আপনার ব্রেনের psychological level এ এবং আপনার mind এবং heart related এমন পাঁচটি tips কে জানতে চলেছি. যার সাহায্যে আপনি easily আপনার ব্রেকআপ থেকে নিজেকে overcome করতে পারবেন।

কারণ emotion feelings তার কথা খুব মনে পড়া. নিজেকে একা feel করা. এই সমস্ত ঘটনা গুলি বাইরে নয়. বরং আপনার ভেতরে ঘটে. তাই এর সমাধানও বাইরে নেই, বরং আপনার ভেতরেই রয়েছে. So lets bigging, টিপ number one য়েকে ফাইনাল ডিসিশন. আচ্ছা চলুন মেনে নিলাম যে আজ আপনাকে আপনার পার্টনারকে ভুলতে খুবই অসুবিধা হচ্ছে. আপনি কোন মতেই ভুলতে পারছেন না তাকে. কিন্তু কতদিন পর্যন্ত. আজ নয় কাল বা নয়তো কয়েক মাস পর আপনাকে কথা তো ভুলতেই হবে. তাই না? তো সেই ফাইনাল ডিসিশানটি আজই কেন আপনি নিয়ে নিচ্ছেন না? দেখুন বিষয়টিকে বুঝুন নেক্সট টাইম আর কোন আশা নেই যে সে আপনার কাছে আবার ফিরে আসবে,বা এমনও হতে পারে যে হয়তো তার কাছে আর যেতে চান না কিন্তু তবুও আপনি তাকে এখনো মনে করছেন. এতে কি লাভ হচ্ছে বলুন. সব থেকে best যদি আপনি কিছু করতে পারেন তাহলে একজন বুদ্ধিমান ব্যাক্তির মতো ভাবুন. আপনি ভাবুন যে যা হয়ে গেছে তা আর past এ গিয়ে আমি কোনো কিছুকে change তো করতে পারবো না. কিন্তু আমি এখন যা করতে পারবো তা হলো আমি আমার আজকে এবং আগামী কালকে better অবশ্যই বানাতে পারবো. দেখুন নিজের লাইফ কে একটি দড়িতে balance ড়ে চলা বন্ধ করুন. একদিকে আপনি তার কথা বারবার মনে করেই যাচ্ছেন. আর অপরদিকে সে কোনদিন ফিরে আসবেই না. মনে রাখবেন যেই দড়ি থেকে যদি কেউ পড়ে তো তা আপনি পড়বেন.

যার যাওয়ার সে তো চলে গেছে. সে তার লাইফ ফুল enjoy করবে কিন্তু আপনি তার কারণে নিজের লাইফ কে খারাপ করছেন তো একবার ভালো ভাবে ভেবেচিন্তে শান্ত মনে, ডিসিশন নিয়ে নিন, যে পৃথিবী উল্টে গেলেও আমি আর তার কাছে ফিরে যাবো না বা আমি আর তার কথা কোন ভাববো না. টিপ নম্বর two don’t be a loser cus you are awesome. কোনদিনই নিজের value কে এই বিষয়টির উপর judge করবেন না যে লোকেরা আপনাকে কতটা পছন্দ করে বা পছন্দ করে না. অন্যের দৃষ্টি ভঙ্গি থেকে বা অন্যের opinion থেকে decision নিয়ে নিজের ব্যাপারে কোনোদিন ভালো বা খারাপ ভাববেন না. আপনি কেমন তা অন্য কেউ আপনাকে বলবে তারপর আপনি জানবেন? তা তো নয় না. তো যখন আপনার breakup হয়েছিল তখন হয়তো আপনার পার্টনার আপনাকে আপনার ব্যাপারে কিছু খারাপ বলেছিল বা হয়তো আপনাকে কোন বিষয়ে দোষ দিয়েছিল,

যে তুমি এরকম তুমি ওইরকম তোমার মধ্যে এই দোষ আছে ওই দোষ আছে তো তার এই কথাগুলিকে অতটা সিরিয়াসলি কোনদিন নেবেন না. সেও একজন মানুষ. গড় তো নয়. যে সে যা বলল, সেটাই ঠিক. তাই না? দশ গুণ সবার মধ্যেই রয়েছে. আর যদি সত্যি আপনার মনে হয়, আপনার মধ্যে কিছু খারাপ অভ্যাস রয়েছে বা খারাপ behaviour রয়েছে তো সেটাকে অবশ্যই ঠিক করুন কিন্তু সেটা আপনার জন্যে অন্য কারো জন্য নয় আমাদের সবার মধ্যেই কিছু না কিছু দোষ রয়েছে যদি আমরা মন থেকে চেষ্টা করি বশ্যই সেই দোষকে শুধরে নিতে পারব. আর হ্যাঁ, ব্রেকআপের পর বন্ধুর সাথে ব্রেকআপ পার্টি কোনদিনই করবেন না. কারণ এগুলি user রা করে. যারা reality কে face করতে পারে না তারাই ঐসব করে.

বরং এগুলো করলে আপনি নিজের লাইফ কে আরো খারাপ বানিয়ে দিচ্ছেন, আর এর ফলে আপনার G জিতে যাবে টিপ নম্বর three, find the purpose in লাইফ আমরা লোকেদের সাথে নিজেকে খুবই attach করে নি, আর তাদের চলে যাওয়ার পর মনে হয় যে লাইফ বা বেঁচে থাকার purpose ই শেষ হয়ে গেছে. আর এটা এই জন্যেই আমাদের সাথে ঘটে, কারণ আমাদের লাইফে কোন গোল বা এম থাকে না. আমাদের কাছে কোন পারপাস থাকে না. যে লাইফে আমার সাথে যাই ঘটুক না কেন আমাকে আমার সেই গোলে পৌছাতেই হবে যদি আপনি লোককে নিজের purpose মনে করেন তাহলে লাইফ এর প্রতিটি step এ আপনি দুঃখই পাবেন. তাই নিজের লাইফ এ একটি purpose কে খুঁজে বের করুন. সেটা বড় হোক বা ছোট হোক it doesn’t matter. যেটা করতে ভালোবাসেন যে কাজটি করতে আপনাকে ভালো লাগে সেটা করুন. নিজের লাইফ এ একটি goal কে set করে নিন.

টিপ number four live your Ego.Mostly লোকেদের সাথে এই ego প্রবলেম টি ঘটে থাকে. যে সে কিভাবে আমাকে ছেড়ে চলে যেতে পারে আমি তার জন্য কত sacrifice ই না করলাম তবুও সে আমাকে ছেড়ে চলে গেল. কিভাবে সে আমার সাথে এরকম করতে পারে? এবার আমি এক এমন ব্যক্তি হয়ে দেখিয়ে দেবো যে সে আমাকে ছেড়ে কত বড়ই না ভুল করেছিল. দেখুন এগুলি সবই কিন্তু ego, আর কিছুই না. আসলে আমাদের মধ্যে থেকে অনেকেই এই কথাটিকে accept করতে রাজিই হয় না যে তাকে ছেড়েও কেউ চলে যেতে পারে. আপনি যদি প্রথম থেকেই তাকে আপনার property মনে করেন তাহলে সে কেন যে কেউ আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে. তাই এই ইগোকে আজি ত্যাগ করুন এবং একজন বুদ্ধিমান এবং mature ব্যক্তির মত move on করুন. মনে রাখবেন ইগো is the enemy.

টিপ নম্বর five close her or his chapter for আপনি আপনার পার্টনারের চ্যাপ্টার কে পার্মানেন্টলি ক্লোজ করে দিন. আপনি চাইলে ফোন থেকে তার কন্টাক্ট নাম্বার তার সমস্ত photos কে delete করতে পারেন বা করে দিন. যদি সে আপনাকে কোনো gift দিয়ে থাকে. তাহলে সেই gift টিকে ফেলে বাজার জরুরি তাকে ডোনেট করে দিন লাইফ থেকে সেই সকল জিনিস গুলিকে দূর করে দিন যেগুলি কিনা আপনাকে তার কথা মনে করিয়ে দেয় তার ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলকে চেক করারও কোনো প্রয়োজন নেই যে সে কি করছে, কোথায় ঘুর কার সাথে ঘুরতে যাচ্ছে? এই সকল জিনিসগুলিকে ignore করুন. তাকে তার লাইফ কে উপভোগ করতে দিন. আপনি আপনার লাইফ কে উপভোগ করুন. পারলে কোন sensible এবং mature ব্যক্তির সাথে কথা বলুন. যার ওপর আপনি বিশ্বাস করেন তার সামনে আপনি আপনার মনের সকল কথা বলতে পারেন. কারণ যখন আপনি মনে চেপে থাকা কথাগুলিকে বাইরে বের করেন তখন automatically আপনার মন অনেক হালকা হয়ে যায়.

তবে হ্যাঁ এমন কোন বন্ধুর সাথে সেই কথা শেয়ার করবেন না যার নিজেরই লাইফ এর ব্যাপারে কোনো experience নেই. দেখুন তার ব্যাপারে আপনি ভালো কথা বা খারাপ কথা কোনোটাই ভাববেন না. এবং হ্যাঁ সবথেকে important কথা আপনার সাথে যে সে এইরকম ড়লো. তাতে আপনি তাকে গালাগালি একদম করবেন না. বরং তাকে ক্ষমা করে দিন. কাউকে কিছু দেখানোর জন্যে show-off করার জন্যে revenge নেওয়ার জন্যে বা কিছু ভয় দেখানোর হিসেবে চলবেন না. লাইফ এ আপনি সেটাই করুন বা লাইফ সেই হিসেবেই চালান যা আপনি করতে ভালোবাসেন.বন্ধুরা আপনার কি কোনদিন break up হয়েছে? নিচে কমেন্ট box এ অবশ্যই জানাবেন. পোষ্ট টিকে share অবশ্যই করবেন. আপনাদের সঙ্গে আবার দেখা হবে পরবর্তী পোষ্টে।

Related Articles

Back to top button